jagannathpurtoday-latest news

,

সংবাদ শিরোনাম :
«» গোলাপগঞ্জের পৌর মেয়র বরখাস্ত «» মুরাদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করা হবে: ওবায়দুল কাদের «» ছাতক সিমেন্ট কোম্পানির বাসাভাড়াও এখন ব্যবসায় পরিণত হয়েছে «» বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সিলেট জেলা কমিটির উদ্যোগে শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধীতে শ্রদ্ধাজ্ঞলী নিবেদন «» শেখ হাসিনা নানামুখী প্রকল্পের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন: হাবিবুর রহমান হাবিব এমপি «» মৌলভীবাজার থেকে অপহৃত শিশু ওসমানীনগরে উদ্ধার «» জগন্নাথপুর উপজেলার দুইজন পাইপগানসহ র‍্যাবের হাতে আটক «» উলামায়ে কেরাম ঐক্যবদ্ধ হলেই দেশে ইসলামি শাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব : পীর সাহেব চরমোনাই «» ছাতকে মারামারির মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত দুই পলাতক আসামী র‍্যাবের হাতে আটক «» জগন্নাথপুরে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরণের দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল

সিলেটে ১০০ কোটি টাকার জমি উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্ট :: সিলেট নগরীর কেন্দ্রস্থলের জিন্দাবাজার এলাকার পার্শ্ববর্তী একটি মহল্লার নাম ‘জল্লারপার’। কিন্তু সেখানে কোনো ‘জল্লা’ (জলাশয়) চিহ্নিত ছিল না। সাত বছর আগে ছড়া উদ্ধার অভিযানের সূত্র ধরে সরেজমিন অনুসন্ধানে মিলল জল্লারপারের হারানো ‘জল্লা’। মঙ্গলবার সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে টানা তিন ঘণ্টার অভিযানে জল্লাটি উদ্ধার হয়। প্রায় ১০০ কোটি টাকা মূল্যমানের পাঁচ একর জায়গাজুড়ে এই জল্লার অবস্থান। দখল ও দূষণের হাত থেকে জল্লা উদ্ধার করে একটি উদ্যান গড়ার পরিকল্পনা নিয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন। এসময় সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, জল্লারপাড়ের ‘জল্লা’ হবে সিলেট নগরীর সবচেয়ে আকর্ষণীয় প্রাকৃতিক স্থান। নগরের মাঝখানে অবস্থিত বৃহৎ এই জলাশয়কে পরিচ্ছন্ন করে নাগরিকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। মেয়র আরিফ বলেন, জলাশয়টি সংরক্ষণে চারপাশে রিটেইনিং ওয়াল এবং ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে। পাঁচ একর আয়তনের এই জলাশয়টি উন্নয়নের কাজ শুরু করা হয়েছে। পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি সিলেট জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বৃহত্তম এ জলাশয়টি দখলমুক্ত করা হবে। এরই মধ্যে জল্লার পশ্চিম পাশে রিটেইনিং ওয়াল, ড্রেন ও ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে সিসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী জানান, প্রকৃতিকে সংরক্ষণের মাধ্যমে সিলেট নগরীর অতীত ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে সিসিক কাজ করছে। জল্লা পরিচ্ছন্নতা ও উন্মুক্তকরণ প্রকল্পে একদিকে যেমন জলাশয় সংরক্ষণ হবে অন্যদিকে নগরবাসীর জন্য আরেকটি প্রাকৃতিক বিনোদন কেন্দ্র উপহার পাবেন। সিসিকের প্রধান প্রকৌশলী মো. নূর আজিজুর রহমান বলেন, জলাশয় সংরক্ষণকে প্রাধান্য দিয়ে জল্লার উন্নয়ন পরিকল্পনা করা হচ্ছে। চারদিকে ওয়াকওয়ে নির্মাণ ও নাগরিকদের বসার ব্যবস্থা রাখা হবে এই প্রকল্পে। জল্লার আবর্জনা পরিষ্কার ও খনন করে এটিকে প্রথমে জলাশয়ে পরিণত করা হবে বলেও জানান তিনি। এসময় সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সরকারের যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধুরী, সিসিকের প্রধান প্রকৌশলী মো. নূর আজিজুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আলী আকবর, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শামসুল দহক পাটোয়ারী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ হানিফুর রহমান, মেয়রের সহকারী একান্ত সচিব মো. সোহেল আহমদ, সহকারী প্রকৌশলী তানভীর আমহদ তামিম, জনসংযোগ কর্মকর্তা আব্দুল আলিম শাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।